story

Phoenix

Sous l'ombrage d'un sage sureau

Coule une intrépide rivière

Ecoutant la mélodie d'un oiseau

Gardant captif le feu en sa serre

 

Envoutant de son chant toute la contrée

Séduisant les colombes avec ses plumes de soleil

Tant et si bien qu'à la fin de la journée

L'éclat de la flamme brilla comme le soleil

 

Son plumage vivement s'incendia

Et le feu sacré, s'étant vengé de son geôlier

s'éteignit doucement sur un monticule cendré

 

Ayant pitié, le sureau tendrement

sculpta des cendres un oeuf 

et donne à l'oiseau une seconde vie.

View sigma_vdr's Full Portfolio

Dramatic tunes

Dramatic tunes play in my mind

as I wait in bed for your replies

Took a trip, tried to listen to

A Brief Inquiry Into Online Relationships

But boy, I really should take note

that 1975 was never the year

that the internet was born 

then lives got weird

 

Dramatic tunes swirl in my mind

Nauseating and mesmerizing, all at once

I trace all the pieces I could find

to draw the image that may resemble you

and draft the letters I could think of

but never would I send to you

 

Dramatic tunes leech on my mind

Trying to design my last demise

The nothingness on their side,

churning violence all coincide

 

Dramatic tunes play in my mind 

As I wait for your replies 

The darkness would soon arrive

here and hear my last goodbye

The flock of crows are closing in

Floating just three feet above

But then I feel my eyes flinch

As the phone buzzed

Author's Notes/Comments: 

A poem about the anxiety you have when you're not sure someone's still interested of you or not anymore. 

Our Story

Folder: 
Band Lyrics

Verse 1:

I can sense it:
Our story is not over yet.

You are the one.

You are my life.

You are my dream.

You are my soul.

You are always

On my mind.

 

Chorus:

As long as you are here with me,

We can truly become “us”.

I realized you cannot find

“The True You” alone.

But, with the one

You love the most.

I love you.

 

Verse 2:

I’ve taken the long way back to us.

However, I found “us” in each other.

The only thing worth living for

Is the power of our love.

Give it away.

Take it away.

You heal my scars and wounds.

 

Bridge:

‘Cause tonight, I’ll be at your side.

Our story never ends.

It begins with us,

In finding “us”

In each other.

Our story begins now.

Author's Notes/Comments: 

Based on episode 11 of the Japanese Drama series: Tokyo Wankei (also known as Destiny of Love) where Mika (Nakama Yukie) and Ryosuke (Wada Soku) characters reunite with each other and confess their love for each other. The scene starts at the 38:05-42:20 mark where this song is based off of.

The Globalist - Oscar AHS

In a car, rolling on a strange deserted highway, the heat absorbed by the skin of the two cousins inside. Only silence and the tires going at 100km/h could be heard, and sometimes the poor insects splashing like a paintball against the car’s front. The driver decided to put Spotify on with a random weird playlist named “I’m a cyborg but that’s ok”.

 

After a few random unorganized songs, The Globalist by Muse came on. “Oh! Hey, listen to this,” said the driver while increasing the volume “I heard this song the other day, it made me think in a short story that fits well with the song.”

 

“Sure, hit it.” Said the cousin.

“Alright,” he prepared himself with his shaky right hand “imagine a man struggling in a deserted highway, he looks messed up, like if a gang of people beat him up to the blink of death. Black eye, blood sliding down like sweat on the forehead, he even lost two complete fingernails with dirt as a substitute. His mind is white, he is not sure what to expect next, but suddenly, a strike of motivation hit him. ‘Screw it, I’ll do it’ he whispered to himself.” The intense part of the song began at this exact moment.

 

“Do what?” his cousin asked.

“Nobody knows, he just decided to do it. He walked in the endless desert, and then he found it. An abandoned cabin in the middle of the desert. He went down the hill and reached the door, he seemed to know the place, and he seemed anxiously angry, collecting weapons that were hidden everywhere in it. Ropes, guns, knives, grenades, a map, water, mustard gas, molotovs and a lot more. Focused and agitated his heart stopped for a second leaving a tight feeling in his chest. He saw a picture laying on the ground, face down, he picked it up and looked at it, he then smirked while having deep thoughts: his childhood friendships, his family hanging out at the local hamburgers store, hanging out with his girlfriend, the day he got married, the day he lost a thousand dollars in the casino, the day he got that thousand bucks back, the year he was on drugs, everything that had impacted his life was flashing on his eyes—‘bang!’ he shoot a bullet on the head of a guy.” The epic-ness of the song turned off.

 

“Wait, what? He was remembering positive things of his life and suddenly all that was cut by a gunshot? Who did he kill?” The music resumed with a resolution feeling on the air.

 

“I don’t know, nobody does. But just imagine it, be in his shoes.”

 

After that, silence was again prevailing, until the driver stopped the car in the middle of nowhere. “Well, this is your stop. I guess, I will see you soon?” said the driver, while looking away. His cousin opened his door, got out of the car, turned back to close the door. “Stop chasing yourself for what you did” he said. The driver looked down, nodded and didn’t said another word. He drove ahead, and he took a glimpse on the front mirror to see the reflection of nothing but an empty road and an endless desert.

View caferino's Full Portfolio

I Don't Know How It Goes

What do I write about?

The story of my life!
I don't know how it goes, do you?
It's a matter of question to you and me to ponder on.
This side of eternity once given is true........or false in ones perception of it all.
Do you remember or is it I've forgotten in all this distraction freely given, to what ends I do not know.
Make believe is what it is I think. It's here in one moment and gone in the next.
How could it be anything other than
Games, we all play them, in hopes to gain some more of it.
Of, 'it'!, whats 'it'?
Life I said. Don't you remember?
or have you forgotten what it is, what it's all about.
I'll tell you what, lets make believe that I am you, and you are me.
Okay now, tell me about your life.
I don't know how it goes, I've forgotten you.
        
             Copyright 2018 by RW Erskine
Author's Notes/Comments: 

contact me at: artjwca@yahoo.ca

or

vist us at Ravenscraft Studios

https://ravenscraftstudios.weebly.com

View rwerskine's Full Portfolio

Tell Me a Story

Tell me a story

I've never heard before

Of faraway lands

And long-distant shores

Of knights and their honor

Of sweet maidens fair

Exercise your eloquence

To transport me there

 

Tell me a story

Of love won and lost

Of heroes unwavering

No matter the cost

Sing me a lullaby

Of joy and regret

And maybe, just maybe

I'll learn to forget

View seraphim's Full Portfolio

Peeling the onion

Peeling the onion

By jfarrell

 

My story, my history

Will come out, layer by layer

Within my poetry

And much of it you won’t like;

“let’s leave those horrors for scary stories”

Like peeling an onion, the deeper you go

The more intense it is

 

When I started writing poetry recently

I upset my sister with it;

It’s stuff she’s got over and buried in the past;

And she is the only one of my relatives I give a stuff about;

But she doesn’t believe that

She believes I stay away out of hate and spite;

I stay away coz I seem to hurt everything I touch

I promised her I wouldn’t write personal stuff

 

Sorry, but I’ve got to break that promise

I write for me, I have to write my story

And I have to write it my way

You can choose to not read

But you cannot tell me not to write;

You found your peace;

I’m still searching for mine.

I need to peel this onion.

 

মহীরুহ [Bangla Story]

এক বিশাল দৈত্যের মতন বটবৃক্ষের কাছে এসে রবীন্দ্রনাথ পরম মমতাভরা চোখে গাছটির সমস্ত দেহের উপর নিজের দৃষ্টি নিবদ্ধ করেন। অনেক দূর থেকে হেঁটে আসার ফলে রবীন্দ্রনাথ বেশ ক্লান্ত, পরিশ্রান্ত। ক্ষণিকের বিশ্রামের তরে তিনি বট গাছের কোলে বসতে যাবেন এমন সময় বজ্রের মতন কণ্ঠে গাছটি তাকে প্রশ্ন করে,

 

- তোমার নাম কি?

- আমার নাম রবীন্দ্রনাথ। তোমার নাম?

- আমার ডাকনাম বট। কেউ কেউ আমাকে মহীরুহ বলেও সম্বোধন করে! আমার চামড়ায় যেমন রেখা বিদ্যমান, ঠিক তেমনি রেখা তোমার মুখ-মণ্ডলেও দেখতে পাচ্ছি। এর কারণ কি?

- কারণ আমার বয়স হয়েছে!

- মানে? ঠিক বুঝলাম না!

- মানে আমি বৃদ্ধ হয়ে গেছি।

- আচ্ছা, আমরা গাছেরা মারা গেলে মাটির সাথে মিশে যাই, বা তোমরা মানুষরাই হয়তো আমাদের শাখা প্রশাখা কেটে নিয়ে পঙ্গু করে দিয়ে সেইসব কাঠ নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করো ইত্যাদি। কিন্তু মানুষ মারা গেলে কি হয়? ওরা কোথায় যায়?

- এই প্রশ্নের উত্তরতো এক কথায় দেয়া সম্ভব নয়!

- আমার তেমন একটা তাড়া নেই! তোমার উত্তর যত দীর্ঘই হোক না কেন, আমি পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ শ্রোতার মতন শুনবো!

- কিন্তু বন্ধু, আমার উত্তর শোনার জন্য অফুরন্ত সময় তোমার আছে ঠিকই, তবে আমার যে বলার জন্য এতো সময় নেই!

- মানে?

- মানে হচ্ছে এই যে তুমি একই জায়গায় দাঁড়িয়ে থাকো, তোমাকে কোথাও যেতে হয় না, নড়তে চড়তে হয় না, কিন্তু আমিতো মানুষ তাই না? আমার যে অনেক অনেক ব্যস্ততা!

- মানুষের কি এমন ব্যস্ততা থাকতে পারে? আচ্ছা, তুমি কি করো?

- আমি লেখালেখি করি, অর্থাৎ আমি একজন লেখক।

- লেখালেখি? লেখালেখি কাকে বলে?

- এই যে আমি তোমার সাথে কথা বলছি, এর নাম হচ্ছে কথোপকথন; ঠিক একইভাবে আমি যদি কোনও কথা কাগজে লিপিবদ্ধ করি তখন সেটির নাম হবে লেখা। আশা করি বুঝতে পেরেছো?

- বুঝেছি, তবে পুরোটা নয়, আংশিক!

- আংশিক কেন?

- কারণ ঐ যে তুমি কাগজ না কি একটা বললে, সেটা কি?

- কাগজ তৈরি হয় গাছ থেকে। নানান বৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে যাবার পর অবশেষে কাগজ সৃষ্টি হয়। সেই কাগজে কলম ঘষে ঘষে অসাধারণ সব গল্প, গান, উপন্যাস, কালজয়ী সাহিত্য রচনা সম্ভব।

- তার মানে আমাদেরকে অর্থাৎ গাছকে হত্যা করেই তোমরা লেখার সরঞ্জাম সংগ্রহ করেই চলেছো তাই না?

- হ্যাঁ, অনেকটা তাই।

- তার মানে তোমরা মানুষরা আসলে হিংস্র প্রকৃতির প্রাণী!  

- হিংস্র? এ কথা বললে যে?

- হিংস্র নয়তো কি? আমরা গাছেরা কি কখনও তোমাদেরকে হত্যা করি, তাহলে তোমরা কেন যুগের পর যুগে আমাদের প্রাণ হরণ করে চলেছো? এ কথার কি কোনও উত্তর আছে তোমার কাছে?

- দেখো বট, এটাকে হিংস্রতা বলাটা সমীচীন হচ্ছে না। এটা প্রয়োজন। মানুষ তার অস্তিত্বের স্বার্থে, সভ্যতা এগিয়ে নেবার স্বার্থে এসব করছে। তাছাড়া দেখো একটি মাছ কিন্তু আরেকটি মাছকে হত্যা করেই বেঁচে থাকতে চায় এবং থাকে; ঠিক একই বিষয় পশুদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। যেমন ধরো একটি গরু যদি ঘাসের সাথে বন্ধুত্বে জড়ায়, তখন সে কি খেয়ে বাঁচবে?

- হুম! তোমার কথায় যুক্তি আছে বৈকি! ঠিক আছে আমি আর এ ব্যাপারে কোনও তর্কে জড়াতে চাই না। আমি এও জেনেছি যে তুমি অনেক ব্যস্ত, তোমাকে অনেক কায করতে হয়। তবে যাবার আগে তোমাকে একটি প্রশ্ন করতে চাই। আশা করি এর একটি সুন্দর উত্তর তুমি দেবে।

- ঠিক আছে, চেষ্টা করবো।

- মাঝে মাঝে কিছু প্রবীণ মহিলা ও পুরুষ আমার সুশীতল ছায়াতলে বসে শিশুর মতন কাঁদতে থাকে। কান্নারত অবস্থায় ওরা ওদের সন্তানদের নামে নিন্দা করে এবং সৃষ্টিকর্তার কাছে তাদের মৃত্যু কামনা করে কারণ ওদের সন্তানেরা নাকি ঐ বয়স্ক লোকদেরকে কুকুর বিড়ালের মতন ঘর থেকে বের করে দিয়েছে। তোমরা মানুষরা এতোটা নির্মম হও কি করে? আমার ডালে যখন ঘণ্টার পর ঘণ্টা কোনও পাখি কিংবা প্রজাপতি বসে থাকে, বিশ্রাম নেয়, বাসা বেধে থাকে, আমিতো তখন তাকে ঘৃণা করি না, বরং ওরা যেন সবসময় আমার সান্নিধ্যে থাকে মনে প্রাণে আমি সেই কামনাই করি। দেখো, ঐসব প্রজাপতি, পাখি ইত্যাদি কিন্তু আমার আত্মীয় স্বজন নয়, তাদের সাথে আমার কোনও শিকড়ের সম্পর্কও নেই, তবুও তাদের প্রতি আমি সীমাহীন ভালোবাসা অনুভব করি। এই ভালোবাসা, এই স্নেহ, এই মায়া, এই মমতা মানুষের মনে এতো কম কেন? তোমরাতো সৃষ্টির সেরা জীব, তাই না? আমরা গাছেরা আমাদের সারা জীবন একই জায়গায় দাঁড়িয়ে শুধু অন্যের তরে নিজেকে বিলিয়েই যাই, কিন্তু বেশীরভাগ মানুষের মধ্যে এই একই ধরণের প্রবণতা দেখতে পাই না, এর কারণটা কি?   

- হে মহীরুহ, একটি প্রশ্ন করতে গিয়ে তুমি বেশ কয়েকটি বিষয়ের উপর আলোকপাত করেছো। হ্যাঁ, আমি তোমার সাথে এখানে একমত যে আমরা মানুষেরা এখনও লোভ, লালসা, হিংসা ইত্যাদির উর্ধে উঠতে পারিনি। প্রযুক্তিগতভাবে আমরা অনেক অনেক দূর এগিয়েছি এ কথা সত্যি, তবে উদারতা, মানবতা, ইত্যাদি দৃষ্টিকোণ থেকে আমরা অনেক অনেক পিছিয়েছি। আসলে আমরা মুখে বলি যে সভ্যতা এগিয়ে গেছে। প্রকৃত অর্থে সভ্যতা একটুও এগোয়নি। সভ্যতা তখনই এগিয়ে যায়, যখন মানুষের মানবীয় গুণাবলীগুলো সূর্যের আলোর মতন চারপাশে আলো ছড়ায়! হ্যাঁ, আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা বৃদ্ধ পিতা মাতাকে বোঝা মনে করে। সেইসব সন্তানদের আচার আচরণ দেখে মনে হয় যেন ঐ প্রবীণ পিতা মাতা মানুষ নয়, যেন তারা সিসিফাসের ঘাড়ের বিশাল ও ভারি পাথরের গোলকের মতন! আর এ কারণেইতো আমি কলম হাতে নিয়েছি যাতে আমি সমাজের সকল অন্যায় অনাচারের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে পারি। আমার বই পড়ে যদি একজন মানুষও আলোর দেখা পান, আমার উপন্যাস বা নাটকের কোনও চরিত্রের করা মারাত্মক ভুল যদি একজন মানুষকে সাবধানী হতে শেখায়, যদি তার বিবেক জাগ্রত হয়, যদি সে সত্যিকারের মানুষ হতে চেষ্টা করে, তবেই আমার চেষ্টা সার্থক হবে বলে আমি মনে করি। তোমার শেষ প্রশ্নের উত্তরে আমি বলতে চাই যে মানুষ যদি তার মন থেকে হিংসা ও লোভ নামক বিষাক্ত সাপ দুটোকে বিতাড়িত করতে পারে, তবে সমাজ ও সভ্যতা প্রকৃত অর্থেই অনেক দূর এগিয়ে যেতে সক্ষম হবে। আসলে সবকিছুর মূলেই রয়েছে আত্মনিয়ন্ত্রণ!

 

- তোমাকে অনেক ধন্যবাদ হে বন্ধু!

- তোমাকেও অনেক ধন্যবাদ। ভালো থেকো। আবার হয়তো দেখা হবে।

 

রবীন্দ্রনাথ হাঁটতে শুরু করেন। বটের ডালে বসে মধুর মতন মিষ্টি কণ্ঠে একটি কোকিল একনাগাড়ে ডেকেই চলেছে। হয়তো বটগাছটি কোকিলকে বলেছে বিদায়বেলায় রবীন্দ্রনাথের উদ্দেশে গান গাওয়ার জন্য! ঠিক তখনই রবীন্দ্রনাথের পিঠে কেউ একজন হাত রাখেন, রবীন্দ্রনাথ শত চেষ্টা করেও পেছন ফিরে তাকাতে পারেন না, তাঁর পেছনে কে দাঁড়িয়ে আছে সেটি জানার তাঁর প্রবল সাধ থাকা সত্ত্বেও তিনি কিছুতেই পেছনে ফিরতে পারছেন না! তবে তিনি সেই মানুষটির কণ্ঠ শুনতে পাচ্ছেন; কণ্ঠটি সুমিষ্ট, একজন নারীর, ঠিক যেন ঐ কোকিলের গানের মতন গলার স্বর!   

 

রবীন্দ্রনাথের নিদ্রা ভঙ্গ হয়; চোখ খুলেই তিনি কাদম্বরী দেবীকে দেখতে পান। কাদম্বরী পরম আদরে আলতো করে রবীন্দ্রনাথের কপালে হাত রাখেন। রবীন্দ্রনাথ অবাক হন; মৃণালিনীকে ডাকতে চেয়েও তাঁর মুখ থেকে একটি শব্দও বের হয় না! রবীন্দ্রনাথ সক্রেটিসের মতন গভীর মনোযোগের সাথে ভাবেন- তাহলে এতক্ষণ কি তিনি স্বপ্ন দেখছিলেন? কাদম্বরীতো কয়েকদিন আগেই মৃত্যুবরণ করেছে! এটা পরকাল নয়তো? নাকি এটাই প্রকৃত স্বপ্ন? নাকি মানবজীবনটা কেবলই স্বপ্নের ভেতরে অজস্র স্বপ্নের মায়াজাল! কে জানে?      

View kingofwords's Full Portfolio
tags:

অভাবে স্বভাব নষ্ট? [অণু গল্প: Bangla Flash Fiction]

      কথায় আছে, অভাবে স্বভাব নষ্ট! তবে তা সবক্ষেত্রে নয়। যেমন পিতামাতা হারা এতিম সালমা অসহনীয় অভাব দেখেছে ঠিকই; ঝড়ের মতন কষ্ট প্রতিনিয়ত তার মাথার উপর বয়ে গেছে প্রতিদিন। তবুও সে সাহসী যোদ্ধার মতই শেষ রক্ত বিন্দু দিয়ে হলেও জীবনের যুদ্ধে লড়াই করে যাবার জন্য নিজের কাছেই সদা অঙ্গীকারাবদ্ধ ছিল, এখনও আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে।

 

        সালমা দেখেছে তার খুবই ঘনিষ্ঠ বান্ধবী আলেয়া কিভাবে অভাবের কাছে পরাজয় বরণ করে নিজের দেহ বিক্রি করে দিয়েছে! এখন সে পতিতাপল্লিতে প্রতিদিন কামুক খদ্দেরদের তৃপ্ত করতেই ব্যস্ত থাকে। জীবনে যে এসব না করেও ইচ্ছা ও পরিশ্রমের মাধ্যমে সম্মানের সাথে সমাজে মাথা উঁচু করে বাঁচা যায়, তার জলজ্যান্ত উদাহরণ হচ্ছে এই সালমা!

 

        সালমা একটি এন জি ও-র কাছ থেকে ক্ষুদ্রঋণ নিয়ে একটি সেলাই মেশিন ও দুটি গরু কিনে ধীরে ধীরে পরিশ্রমের মাধ্যমে স্বাবলম্বী হয়ে উঠেছে। পাড়ার কোনও কোনও অভাবী মহিলারা সালমার সফলতা দেখে ঈর্ষায় কয়লার মতন জ্বলে পুড়ে মরে!

 

        আবার অনেক মহিলা সালমার সফলতায় খুশি হয়েছে এ কথা বলতেই হবে। যেমন, রিক্সাওয়ালা খসরুর স্ত্রী মদিনা বিবি। মদিনা প্রায়ই সালমার কাছে এসে পরামর্শ চায় যে কি করে সেও তার জীবন সুন্দর করে গোছাতে পারে; কি করে সেও স্বাবলম্বী হয়ে উঠতে পারে। একদিন মদিনা বলে,

 

- সালমা, তুমি আমারে ঐ এন জি ও না ফেন জি ও কি যেন, হেইখানে লইয়া যাইবা একদিন।


- তুমি কি হাছাই যাইতে চাওনি মদিনা? তুমি কি আসলেই যাইতে চাও, নাকি আমার লগে ইয়ার্কি মারতাছো কও দেহি?


- হ গো, হাছা কইতাছি। তুমি কবে নিবা কও।


- কাইল চলো তাইলে।


- হ, কাইল যাওয়া যায়। আমার মরদরে কইছিলাম হেইখানে লইয়া যাইবার লাইজ্ঞা কিন্তু হেয় এন জি ও-র কথা হুইনা কয় নাকি এইগুলান খারাপ! এন জি ও নাকি ভালা না! এরা নাকি লোনের প্যাঁচে ফালাইয়া মাইনষের বেবাকতা লইয়া ফকির বানাইয়া ছাড়ে!


- আরে ধুর! তোর জামাই একটা আহাম্মক! হেয় কিচ্ছুই জানে না, ব্যাঙ জানে! আমি হেইখান থেইকা লোন লইয়া স্বাবলম্বী হইছি না কও দেহি?


- হ, হইছোতো! আমরা সবাইতো এইডার সাক্ষী আছি!


- তাইলে তোমার মরদের আলতু ফালতু কথায় কান না দিয়া কাইল লও আমার লগে এন জি ও-তে।


- ঠিক আছে তাইলে কাইল বিকালে যামুনে নাকি কও?


- হ, বিকালেই ভালা হইবো।


- আইচ্ছা, আমি তাইলে উডি। কাইল দেহা হইবো। ভালা থাইকো। গেলাম।


- হ, তুমিও ভালা থাইকো বইন! আল্লাহ্‌ হাফেজ!


- আল্লাহ্‌ হাফেজ! 

 

        মদিনা লোন নিয়ে নিজেও সালমার মতন সফলতার মুখ দেখেছে। আজ মদিনার ঘরে সুখ আছে, অভাব নেই! আজ সে দরিদ্র নয়, স্বাবলম্বী ও সচ্ছল একজন মানুষ! 

View kingofwords's Full Portfolio
tags: